কবিতা

 কুলি-মজুর -কাজী নজরুল ইসলাম-latenightdream.com

 কুলি-মজুর

কাজী নজরুল ইসলাম

দেখিনু সেদিন রেলে,

কুলি বলে এক বাবু সাব তারে ঠেলে দিলে নিচে ফেলে!

চোখ ফেটে এল জল,

এমনি করে কি জগৎ জুড়িয়া মার খাবে দুর্বল?

যে দধীচিদের হাড় দিয়ে ঐ বাষ্প-শকট চলে,

বাবু সাব এসে চড়িল তাহাতে, কুলিরা পড়িল  তলে।

বেতন দিয়াছ ? —চুপ রও যত মিথ্যাবাদির দল!

কত পাই দিয়ে কুলিদের তুই কত ক্রোর পেলি বল!

রাজপথে তব চলিছে মোটর, সাগরে জাহাজ চলে,

রেলপথে চলে বাষ্প-শকট, দেশ ছেয়ে গেল কলে,

বল তো এসব কাহাদের দান! তোমার অট্টালিকা

কার খুনে রাঙ্গা ? –ঠুলি খুলে দেখ, প্রতি ইটে আছে লিখা।

তুমি জান নাকো, কিন্তু পথের প্রতি ধুলিকণা জানে

ঐ পথ, ঐ জাহাজ, শকট, অট্টালিকার মানে!

আসিতেছে শুভদিন,

দিনে দিনে বহু বাড়িয়াছে দেনা, শুধিতে হইবে ঋণ!

হাতুড়ি শাবল গাঁইতি চালায়ে ভাঙ্গিল যারা পাহাড়,

পাহাড়-কাটা সে পথের দু-পাশে পড়িয়া যাদের হাড়,

তোমারে সেবিতে হইলো যাহারা মজুর, মুটে ও কুলি,

তোমারে বহিতে যারা পবিত্র অঙ্গে লাগাল ধূলি;

তারাই মানুষ, তারাই দেবতা, গাহি তাহাদেরি গান,

তাদেরি ব্যথিত বক্ষে পা ফেলে আসে নব উত্থান!

                                                (সংক্ষেপিত)

Show More
Back to top button